Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ০৭:২০ অপরাহ্ন

Send Email: [email protected]
কক্সবাজার সরকারি কলেজের নতুন বাস চকরিয়া পর্যন্ত চালু করার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

কক্সবাজার সরকারি কলেজের নতুন বাস চকরিয়া পর্যন্ত চালু করার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

মীর মোকাদ্দেস হোসাইন

কক্সবাজার সরকারি কলেজে সংযোজিত নতুন বাস কক্সবাজার থেকে চকরিয়া পর্যন্ত চালু করার দাবিতে কলেজের অধ্যক্ষ মহোদয়ের নিকট স্মারকলিপি প্রদান করে কক্সবাজার কলেজে পড়ুয়া পেকুয়া – চকরিয়া উপজেলার শিক্ষার্থীরা।
আজ সকাল ১১ ঘটিকায় শতাধিক শিক্ষার্থী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে সাথে নিয়ে
প্রতিষ্ঠান প্রধানের নিকট তাদের এই দাবি তুলে ধরেন।

তথ্যমতে, কক্সবাজার জেলার সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ কক্সবাজার সরকারি কলেজে লেখাপড়া করে চকরিয়া এবং পেকুয়া উপজেলার হাজারের অধিক শিক্ষার্থী। দারিদ্রতা, কলেজের ছাত্র হোস্টেল চালু না থাকা,মহিলা হোস্টেলে পর্যাপ্ত আসন না থাকায় বেশিরভাগ ছাত্র-ছাত্রী বাড়ি থেকে কলেজে আসা যাওয়া করেন।
আসা যাওয়ার জন্য তাদেরকে চট্টগ্রাম -কক্সবাজার মহাসড়কের যাত্রীবাহী বাসগুলোর উপর নির্ভর করতে হয়। ফলে তাদের বিভিন্ন সমস্যায় ভুগতে
হয়। প্রতিনিয়ত তারা দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।
শাহ আলম গাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ায় মাথা সহ আলাদা হয়ে কলেজ ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। বাস স্টাপদের সাথে কলেজ ছাত্র-ছাত্রীর মারামারি হাতাহাতির ঘটনা দৈনন্দিন পত্রিকাগুলোর শিরোনাম হয় প্রায় সময়।
কলেজের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ছাত্র আরমান বিন কাশেম জানান, আমার বাডি পেকুয়ায়।আমি রোজ বাড়ি থেকে কলেজে লোকাল বাসে করে আসা যাওয়া করি।
কলেজে আসতে আমাদের অনেক দূর্ভোগ পোহাতে হয়। বাসগুলো কলেজের ছাত্রদের তুলতে চায় না।
জোরপূর্বক বাস থেকে নামিয়ে দেয়।
গালমন্দ করে।

ইতিহাসের ছাত্র মাহফুজুর রহমান সুমন বলেন,
ঐতিহ্যবাহী কক্সবাজার সরকারি কলেজে ছাত্র হোস্টেল নাই। আমাদের মত অনেক গরিব সন্তানের কক্সবাজার শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে পড়ালেখা চালানো সম্ভব হয় না।
কলেজ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই ৩টি গাড়ি এখন কলেজে রয়েছে। কেন পরিবহণ চকরিয়া থেকে কলেজ উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে না? এর সুষ্ঠু বিবেচনা পূর্বক সমাধান আশা করছি।
আমি একজন কলেজের অনার্স পড়ুয়া ছাত্র, ২০১৬ সালে ইন্টারে ভর্তি হয়ে আজ পর্যন্ত কলেজে অধ্যয়ন করে আসছি। যাত্রা পথে বিড়ম্বনা কতটা লজ্জাকর নিজে মুখামুখি না হলে বোঝানো মুশকিল হয়ে যায়। মারামারি হাতাহাতি গালমন্দ আরও কতকি যেগুলা ছাত্রদের দৈনন্দিন শুনতে হয়।
এসময় কলেজের অধ্যক্ষ জনাব একেএম ফজলুল করিম চৌধুরী মহোদয় তাদের দাবি যথাযথ বিবেচনা করে দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন।

মন্তব্য করুন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপনঃ


কক্সবাজার নিউজ বিডি (সিএনবি)তে ব্যবহৃত সকল সংবাদ ও আলোকচিত্র বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি। স্বত্বাধিকারী কর্তৃক coxsbazarnewsbd.com এর সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (নিবন্ধন নম্বর-১০০৬৮)
Desing & Developed BY MONTAKIM