Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
বাংলাদেশ, , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯

সিকি আনার হালখাতা!

সিএনবি ডেস্ক  ২০১৯-০৪-১৩ ২১:২৪:৪৯  

মির্জা ওবাইদ রুমেলঃ

সিকির প্রচলন এখন আর নেই। মুক্ত বাজার অর্থনীতিতে সিকির মুদ্রামান শূন্যের কোটায়। আধুলির অবস্থাও সংকটাপন্ন। এমনই সময়ে সিকির সাথে আমার মণিকাঞ্চন যোগ হয়েছে। “আমার চিঠি” শিরোনামে অপাঠ্য লিখা গুলোর বর্তমান পাঠক সংখ্যা(ফেইসবুক ও অন-লাইন পোর্টালের পরিসংখ্যানুযায়ী)সিকি সহস্রাধিক।

সমকালের বাজারে সিকির বিনিময়ে কোন পণ্য পাওয়া যায়না। কিন্তু আমি সিকির বিনিময়ে মহামূল্যবান পাঠকের ভাবানুভূতি পেয়েছি। তাই সকল পাঠককে উচ্ছসিত মননে হৃদয়োৎসারিত শুভাশিষ জানাচ্ছি। চৈত্রের তাপদাহের শেষ রজনী পর উদয় হবে ১৪২৬বঙ্গাব্দের নবসূর্য। আমি সওদাগর না হলেও চৈত্রের অন্তিম দিনে “হালখাতা”খোলে বসা আমার সিকি সালের ধারাবাহিক অভ্যাস।

আমার হালখাতায় দেনা-পাওনা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব-নিকাশ থাকেনা। থাকে ভুল-ত্রুটি-গ্লানির নিকাশ। লিপিবদ্ধ থাকে সহজনদের কাছ থেকে প্রাপ্ত মৌন ও গৌণ ভালোবাসার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ।১৪২৬ বঙ্গাব্দের গন্ধ ভরা নয়াখাতা জীর্ণ-জরা মুক্ত রাখার অঙ্গিকার বাস্তবায়নে- নিরলস প্রয়াসের ক্ষেত্রে কঠিন হবো।

বৈশাখি উৎসব বাঙালীর বর্ণীল সংস্কৃতির ইতিহাস-ঐতিহ্যের রঙ্গিলা আয়োজন। নাগর দোলায় কৈশোরের হৈ-রৈ, বলি খেলায় হাওয়াই মিঠাই, পার্বতীদের বাড়ীর খৈ-নাড়,পাঠশালার ঈশান কোনে সু-বিশাল বৃক্ষে থোকায় থোকায় ঝুলে থাকা সিদুঁরে আম, বিগতা যৌবনা নদীতে নৌকা বাইচ, শস্য খোলায় ষাঁড়ের লড়াই, আঁধখানা চন্দ্র আলোয় কীর্তন-পুঁথি পাঠ, যাত্রাপালায় অলেয়ার চরিত্রাভিনেত্রীর মন উছলা শরীর দ্বিগুন রাঙায় বৈশাখী আয়োজন।

নগর আর গ্রামের বিভেদে শহুরেরা তথাকথিত ইলিশ-পান্তা খেয়ে, পাঞ্জাবী-শাঁড়ি আবরিত তারুণ্য খোঁপায় দুটি ফুল গুজে নিরর্থক বৈশাখী আনন্দ খোঁজে। বৈশাখি উৎসব নগর-গ্রামে ভিন্নভাবে উদযাপিত হলেও বার্তা বহন করে একই।কবির কাব্যময় বয়ানের মতো-“ আনন্দে আতঙ্কে নিশি নন্দনে উল্লাসে গরজিয়া মত্ত হাহা রবে/ঝাড় সঞ্জীব বাঁধ উম্মাদিনী কালবৈশাখির নৃত্য হোক তবে”।

রাজনীতি-সংস্কৃতি-শিল্প-সাহিত্য-ব্যবসা-বাণিজ্য-সমাজ-সংসার-ঘর গেরস্থালীতে একমুঠো সাফল্যের তরে কতোই না জীবন সংগ্রাম। তবে সব সংগ্রামের বিজয় নিহিত থাকে মানুষকে ভালোবাসাতে পারার যোগ্যতায়। কৃষ্ণ-শ্বেত বিভেদ না করে লালনের মতো মানুষকে ভালোবাসার নিরন্তর সাধনে কাটুক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

যার হাসির আলোয় সকাল হবে আমার;তারে সবাই কালো বলে!তবে কবি গুরুর মতো-“কৃষ্ণকলি আমি তারেই বলি/কালো তারে বলে গাঁয়ের লোক/মেঘলা দিনে দেখেছিলাম মাঠে/কালো মেয়ের কালো হরিণ চোখ”। আমি গায়েঁর লোক, আমার কৃষ্ণকলি রঙে-রঙে সাজবে এবার রঙিলা বৈশাখে। বৈশাখের প্রথম আলোয় কৃষ্ণকলির কাছে চেয়ে নেব সিকিসম ভালোবাসা।

(মির্জা ওবাইদ রুমেল,

লেখক-সাংবাদিক

সাবেক ছাত্রনেতা,কক্সবাজার)

মন্তব্য করুন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন


ফেইসবুকে আমরা

বিজ্ঞাপন